মেনু নির্বাচন করুন

ছবি
শিরোনাম
জিনারদী কলা বগান
বিস্তারিত

আমরা জানি নরসিংদী জেলার কলা সারা দেশে বিখ্যাত। ইহা খেতে খুবই সুস্বাদু।

গুরুত্বঃ

কলা বারমাসি ফল। কাঁচা কলাতে প্রচুরপরিমাণ আয়রন ও ফসফরাস পাওয়া। পাকা কলাতে ভিটামিন-বি, ফসফরাস ও শর্করা পাওয়া যায়।

 

জলবায়ু ও মাটি

উষ্ণ ও আর্দ্র আবহাওয়ায় কলা ভাল জন্মে। জৈবসার সমৃদ্ধ এবং পানি নিষ্কাশনের সুবিধাযুক্ত উঁচু জমি কলা চাষের জন্য উত্তম।

 

জাত

নরসিংদীতে  অমৃতসাগর, মেহেরসাগর, সবরী, চাম্পা, কবরী, জাহাজী, গ্যানাসুন্দরী ইত্যাদি জাতের কলার চাষ হয়ে থাকে।

 

 

জমি তৈরী
বারবার চাষ দিয়ে জমি ভালভাবে তৈরী করে নিতে হয়। অমৃত সাগর কলার জন্য ২ x ২ মি. দূরত্বে কাঠি পুঁতে চারা রোপণের জায়গা চিহ্নিত করা হয়। কাঠিটিকে কেন্দ্র করে ৪৫ x ৪৫ x ৪৫ সে. মি. গর্ত খুড়তে হয়। এ সময় গর্তের উপরের মাটি আলাদা রাখতে হবে। গর্তটি ১০-১৫ দিন উম্মুক্ত ফেলে রাখাই ভাল। প্রথমে জৈবসার উপরের মাটির সাথে মিশিয়ে গর্তে ফেলতে হবে। এরপর মাটি দেয়ে গর্তটি সম্পূর্ণ ভরে ফেলতে হবে। মেহের সাগর কলার বেলায় ১.৮ x ১.৮ মি. দূরত্বে রোপণ করা যেতে পারে। বিশেষ ক্ষেত্রে এর চেয়ে কম দূরত্বে (১.৫ x ১.৫ মি.) বামুন জাতগুলো রোপণ করা চলে।

চারা সংগ্রহ ও রোপণ
বেশী পুরানো বাগান হতে চারা সংগ্রহ না করা উত্তম। পুরানো বাগানের কন্দ উইভিল পোকাক্রান্ত হতে পারে। গর্তে সার প্রয়োগের পর চারা রোপণ করতে হয়। সোর্ড সাকার/তরবারি চারা রোপণ করাই উত্তম। প্রতি হেক্টরে ২ x ২ মিটার দূরত্বে ২৫০০টি, ১.৮ x ১.৮ মি. দূরত্বে ৩০৮৬টি ও ১.৫ x ১.৫ মি. দূরত্বে ৪৪৪০টি সাকারের প্রয়োজন হয়।

রোপণ সময়
কলার চারা বছরে ৩ মৌসুমেই রোপণ করা যায়। মধ্য জানুয়ারী থেকে মধ্য মার্চ। মধ্য মার্চ থেকে মধ্য মে এবং মধ্য সেপ্টেম্বর থেকে মধ্য নভেম্বর।